ঢাকা সিটি নির্বাচন: দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহে প্রথম দিনেই ব্যাপক উৎসাহ

আসন্ন ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচন ঘিরে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিরোধী দল বিএনপিতে এখন সরগরম অবস্থা। মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থী হওয়া নিয়ে চলছে তদবির-লবিং। দুই দলেই মেয়র প্রার্থীর চেয়ে দুই সিটির ১২৯ টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীদের দৌড়-ঝঁপ চলছে বেশী। প্রতিটি ওয়ার্ডে দেখা যাচ্ছে প্রার্থীর ছড়াছড়ি। মেয়র পদে আওয়ামী লীগের উত্তরের প্রার্থী হিসেবে আতিকুল ইসলাম প্রাথমিকভাবে চূড়ান্ত রয়েছে। তবে দক্ষিণে সাঈদ খোকন না ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস-কাকে প্রার্থী করা হবে তা জানা যাবে বোর্ড সভার পর। যদিও দুই জনই দবি করছেন তারা গ্রিন সিগন্যাল পেয়েছেন।

অপরদিকে বিএনপি থেকে উত্তরে সাবেক প্রার্থী তাবিথ আউয়াল ও দক্ষিণে নতুন প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেনকে মনোনয়ন দেয়া হতে পারে বলে জানা গেছে। গতকাল থেকে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি মনোনয়নপত্র ফরম বিতরণ শুরু করেছে। প্রথম দিনেই দুই দলের অফিসের সামনে দিনভর ছিল প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের ঢাক-ঢোলকের বাদ্যবাজনার সাথে মিছিল-শ্লোগান-শোডাউনে মুখরিত। প্রার্থীরা নিজেদের জনপ্রিয়তা দেখানোর জন্য বড় বড় শো-ডাউন করেছেন। ছিল ব্যাপক উত্সাহ উদ্দীপনা আর উত্সবের আবহ। এদিকে গতকাল প্রথম দিনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নের জন্য মোট ৮ জন মেয়র প্রার্থী আবেদনপত্র ক্রয় করেছেন বলে জানান দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া। অপরদিকে বিএনপির মেয়র প্রার্থীরা আজ মনোনয়ন ফরম কিনবেন। গতকাল দলের ১২৪ জন ওয়ার্ড কাউন্সিলর মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। আওয়ামী লীগের উত্তরে বর্তমান মেয়র আতিকুল ইসলামসহ ৪ জন, দক্ষিণে দুই সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস ও হাজি মো. সেলিমসহ চার জন ফরম ক্রয় করেন।

আওয়ামী লীগ: ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে দুই সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস ও হাজি মো. সেলিমের পক্ষে আবেদনপত্র কেনা হয়েছে। যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শেখ ফজলুল হক মনির ছেলে ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের পক্ষে আবেদনপত্র ক্রয় করা হয়। এ সময় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মুর্শেদ কামালসহ ধানমন্ডি, মোহাম্মদপুর, হাজারীবাগ ও নিউমার্কেট থানার দলীয় নেতাকর্মী এবং ক?মিশনারগণ উপস্থত ছিলেন। হাজি মো. সেলিমের জন্য মনোনয়ন ফরম তোলেন তার ব্যক্তিগত সহকারী মহিউদ্দিন আহমেদ বেলাল। এছাড়া দক্ষিণে মেয়র প্রার্থী হতে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক মহাসচিব এম এ রশিদ, শেখ রাসেল শিশু কিশোর পরিষদের উপদেষ্টা মো. নাজমুল হকও মনোনয়নের জন্য আবেদনপত্র কিনেছেন।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে বর্তমান মেয়র আতিকুল ইসলাম আবার নৌকার প্রার্থী হতে আওয়ামী লীগের আবেদনপত্র সংগ্রহ করেছেন। তার পক্ষে আবেদনপত্র কেনেন তার ছোট ভাই আবু মাহমুদ খান ও মেয়রের রাজনৈতিক সচিব সাইফুদ্দিন ইমন। এছাড় উত্তরে মেয়র পদে মনোনয়নের জন্য আবেদনপত্র তোলেন বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহীদুল্লাহী ওসমানী, ভাষানটেক থানা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মোঃ ইয়াদ আলী ফকির, শহীদ পরিবারের সন্তান অধ্যাপক মোঃ জামান ভূইয়া। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ দুই সিটিতেই বর্তমান মেয়র আওয়ামী লীগের। উত্তরে আতিকের পাশাপাশি দক্ষিণের সাঈদ খোকনও ফের প্রার্থী হতে চান। তবে তিনি গতকাল আবেদনপত্র ক্রয় করেননি। আওয়ামী লীগের মনোনয়নের জন্য আবেদনপত্র বিক্রি ও জমা আগামী ২৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত চলবে।

এদিকে নগরজুড়ে পোস্টারে পোস্টারে প্রত্যাশার কথা জানান দিয়েছেন আওয়ামী লীগের নতুন কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক নজিবুল্লাহ হিরু। শোনা যাচ্ছে সাবের হোসেন চৌধুরীর নামও। এখন সবাই তাকিয়ে মনোনায়ন বোর্ডের সিদ্ধান্তের দিকেই। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী কাজী মো. নজিবুল্লাহ হিরু বলেন, ‘বিভিন্ন অদক্ষতা দেখে মনে হলো সিটি কর্পোরেশনে একজন ভালো কাজ করার লোক দরকার।’ দলের হাইকমান্ড বলছেন যাচাই-বাছাই শেষে যোগ্য প্রার্থীর হাতেই দেয়া হবে টিকিট। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ‘চমক আছে। জনগণ গ্রহণ করবে এমন প্রার্থীকেই আওয়ামী লীগ মনোনয়ন দেবে।’ নির্বাচনে অংশ নিতে ইচ্ছুক প্রার্থীরা এরই মধ্যে অনানুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করেছেন। রাজধানীর বিভিন্ন দেয়ালে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের পোস্টারও সাঁটা হচ্ছে। ২০১৫ সালে ঢাকা দক্ষিণ করপোরেশনে সাঈদ খোকন মেয়র নির্বাচিত হন এবং উত্তরে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আনিসুল হক। দুজনেই আওয়ামী লীগ প্রার্থী ছিলেন। ২০১৭ সালের ৩০ নভেম্বর উত্তরের মেয়র আনিসুল হক মারা যাওয়ায় পদটি শূন্য হয়। এরপর চলতি বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি উত্তর সিটির উপ-নির্বাচনে মেয়র হন আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতিক।

বিএনপি: ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর পদে আগ্রহী প্রার্থীদের মধ্যে দলীয় মনোনয়নপত্র গতকাল বুধবার থেকে বিতরণ শুরু করেছে বিএনপি। আজ বৃহস্পতিবারও চলবে। মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে প্রার্থীদের এ দু’দিনের মধ্যেই জমা দিতে হবে। প্রথম দিনে নয়া পল্টনের মহানগর বিএনপি কার্যালয় থেকে (ভাসানী ভবন) দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন দুই সিটির ১২৪ জন কাউন্সিলর প্রার্থী। প্রার্থীরা বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী সঙ্গে নিয়ে মনোনয়ন ফরম নেন। তবে, দলের ত্যাগীরা কাউন্সিলর পদে মনোনয়ন পাবে কিনা তা নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। এতে কাউন্সিলর পদে বিভিন্ন ওয়ার্ডে বিদ্রোহী প্রার্থী দেখা যেতে পারে।

এদিকে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে আগ্রহী প্রার্থীদের মধ্যে দলীয় মনোনয়ন পত্র আজ বৃহস্পতিবার বিতরণ করবে বিএনপি। সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত ফরম বিতরণ করা হবে। আর ফরম জমা দিতে হবে আগামীকাল শুক্রবার বিকেল ৪ টার মধ্যে। দক্ষিণের মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন জানান, তিনি আজ বিকাল তিটায় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করবেন। মনোনয়ন পদ প্রত্র্যাশীদের গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে শনিবার সাক্ষাতকার হবে। ওইদিনই দলের পার্লামেন্টারি বোর্ড প্রার্থী চূড়ান্ত করবে। গতকাল মনোনয়ন ফরম কিনেছেন পল্লবীর ৬নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সহ-সাধারণ সম্পাদক মো: ইকবাল হোসেন।

রূপনগরের ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে মিরপুর থানার সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন দুলু, ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের মনোনয়ন প্রত্যাশী হাজি শরিফুল ইসলাম মিলন, ঢাকা উত্তরের ২নং ওয়ার্ডে এসএম গোলাম, ৩নং ওয়ার্ডে জুয়েল রানা, সরাফত আলী, জামান হোসেন, ৬নং ওয়ার্ডে ইকবাল হোসেন, শেখ হাবিবুর রহমান, মাহফুজ হোসাইন খান সুমন, ৭নং ওয়ার্ডে দেলোয়ার হোসেন দুলু,১৫ নং ওয়ার্ডে হাজি শরিফুল ইসলাম মিলন, ২১নং ওয়ার্ডে এজিএম শামসুল হক, মান্নান মোল্লা, ২২নং ওয়ার্ডে ফয়াজ আহমেদ, জহিরুল ইসলাম ভূঁইয়া, ২৩নং ওয়ার্ডে কামাল আহমেদ দুলু, ২৪নং ওয়ার্ডে জাহাঙ্গীর হোসেন, মাহমুদুল আলম মন্টু, ২৬নং ওয়ার্ডে আজিজুর রহমান মোছাব্বির, ২৯নং ওয়ার্ডে এনায়েতুল হাফিজ, ৩০নং ওয়ার্ডে মনোয়ার হাসান জীবন, হাজী জয়নাল আবেদীন, ৩৩ নং ওয়ার্ডে আহমেদ আলী, ৩৪নং ওয়ার্ডে মাসুম খান রাজেস, ৪৮নং ওয়ার্ডে আলী আকবর, ৪৯নং ওয়ার্ডে শাহাবউদ্দিন সাগর, ৫০নং ওয়ার্ডে দেওয়ান মো. নাজিমউদ্দিন, ৫১ নং ওয়ার্ডে মোস্তফা কামাল হূদয়, ৫৩নং ওয়ার্ডে তালহা, ৫৪নং ওয়ার্ডে হাজী জহিরুল ইসলাম এবং দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৪নং ওয়ার্ডে আশরাফুল রজিম, ২৫নং ওয়ার্ডে সাবেক কাউন্সিলর আলতাফ হোসেন, তাসাদ্দেক হোসেন বাবলু, ২৬নং ওয়ার্ডে মীর আশরাফ আলী আজম, আরমান হোসেন বাদল, ২৭নং ওয়ার্ডে সাহিদা মোরশেদ, নাসির আহমেদ, ২৮নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর আনোয়ার পারভেজ বাদল, মনিউর রহমান মনির, ২৯নং ওয়ার্ডে শহিদুল ইসলাম বাবুল, শহিদুল ইসলাম রাসেল, টিপু সুলতান, নাজিমউদ্দিন নাজু, আমির হামজা মোল্লা, ৩০নং ওয়ার্ডে হুমায়ুন কবির, ইলিয়াস, ৩১নং ওয়ার্ডে এমএ কাইয়ুম, আনোয়ারুল হক রনি, ইমরান আহমেদ রনি, ৩২নং ওয়ার্ডে রফিকুল ইসলাম, হায়দার বাবলা, ৩৩নং ওয়ার্ডে লতিফউল্লাহ জাফরু, ৩৪নং ওয়ার্ডে মো. মামুন, ৩৫নং ওয়ার্ডে ইয়াকুব সরকার প্রিন্স, ৪১নং ওয়ার্ডে লিয়াকত আলী, ৪৬নং ওয়ার্ডে হাজী ফারুক হোসেন, ৪৭নং ওয়ার্ডে মাহবুব মওলা হিমেল, ৫১নং ওয়ার্ডে আ ন ম সাইফুল ইসলাম, ৫৪নং ওয়ার্ডে মোজাম্মেল হোসেন ও ৬৪ নং ওয়ার্ডে ইসমাইল হোসেন ভূঁইয়া তুহিন প্রমুখ।

উল্লেখ্য ,আগামী ৩০ জানুয়ারী দুই সিটিতে ভোট হবে। উত্তর সিটিতে ওয়ার্ড রয়েছে ৫৪টি ও দক্ষিণে ৭৫টি। আর সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদ রয়েছে উত্তরে ১৮, দক্ষিণে ২৫টি।

যোগ দেওয়ার একদিন পরেই উত্তরে মেয়র পদে জাপার মনোনয়ন পেলেন কামরুল

মঙ্গলবার দলে যোগ দেওয়ার একদিন পরেই ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) নির্বাচনে মেয়র পদে জাতীয় পার্টির (জাপা) মনোনয়ন পেলেন অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল কামরুল ইসলাম। গতকাল বুধবার দলের বনানী অফিস মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিক তার হাতে মনোনয়ন ফরম তুলে দেন জাপা চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের। এ সময় তিনি বলেন, এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি নির্বাচন আমরা জোটবদ্ধ হয়ে করেছি। সরকারের পক্ষ থেকে জোটবদ্ধ নির্বাচনের প্রস্তাব এলে আলাপ-আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেব। প্রসঙ্গত মঙ্গলবার সাবেক সেনা কর্মকর্তা কামরুল ইসলামের নেতৃত্বে শতাধিক অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য জাতীয় পার্টিতে যোগ দেন। এদিকে জাপা সূত্র জানায়, গতকাল প্রায় অর্ধশত কাউন্সিলর প্রার্থী দল থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।

Total Page Visits: 218 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares