তালায় পল্লীতে গাভী খামার গড়ে তুলে লাভবান খামারীরা

সাতক্ষীরার তালা উপজেলার  জেয়ালা গ্রামে ঘোষ সম্প্রদায়ের বসতি। এক সময়ের অবহেলিত ঘোষপাড়া জনপদটি এখন দুগ্ধপল্লী নামে পরিচিত। প্রতিদিন ৩০ হাজার লিটার দুধ উৎপাদন হয় এই পল্লীতে। এসব দুধ রপ্তানি হয় রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। যা প্রভাব ফেলেছে এলাকার অর্থনীতিতেও। এলাকার তর“ণ-যুবকরাও এখন ঝুঁকছে গাভী পালনে, গড়ে তুলছেন খামার।

২০১০ সালে তালার আটারই গ্রামের আবু হারেজ সরদারের ছেলে আল-আমিন সরদার দুইটা গাভী নিয়ে খামার শুর“ করেন। এখন আল-আমিনের খামারে ৩০টি গাভী। দৈনিক খরচ বাদ দিয়েও দুধ বিক্রি করে আয় করছেন ১২-১৫শ’ টাকা।

তালা দুগ্ধ কেন্দ্র সমিতির সভাপতি দিবস চন্দ্র ঘোষ জেয়ালা গ্রামের ঘোষপাড়ার বাসিন্দা। তার খামার থেকে দৈনিক ৩শ’ লিটার দুধ উৎপাদন হয়। গাভীর খামার থেকে খরচ বাদ দিয়ে দৈনিক পাঁচ হাজার টাকা রোজগার করছেন।

তিনি আরও বলেন, ‘‘বাবা দুধের ব্যবসা করতেন। এটা আমাদের পৈতৃক ব্যবসা। তবে আগে স্বল্প পরিসরে থাকলেও বর্তমানে খামারটি বড় আকারে করেছি। আমার ২৩টি গাভীর মধ্যে দৈনিক ২১টি গাভী ৩০০ লিটার দুধ দেয়। প্রতি লিটার দুধ বিক্রি হয় সাড়ে ৩৭ টাকা। যা বিক্রি হয় ১১ হাজার টাকা। এছাড়া দৈনিক খরচ হয় ৬-৭ হাজার টাকা। প্রতিদিন খরচ বাদ দিয়েও ৫ হাজার টাকার বেশি লাভ হয়।’’ 

তিনি জানান, জেয়ালা ঘোষ পাড়ায় রয়েছেন ১২০ জন খামারি। এছাড়া জেয়ালা গ্রামের মধ্যে রয়েছে আরও তিনশ’র বেশি খামারি। এলাকার বেকার যুবকরাও এখন গাভী পালন ও খামার করেছেন। জেয়ালা ঘোষপাড়া থেকে দৈনিক ২০ হাজার লিটার দুধ উৎপাদন হয়।

এসব দুধ মিল্ক ভিটার কাছে বিক্রি করা হয়। শুধুমাত্র ঘোষপাড়া থেকে দৈনিক সাড়ে ৭ লাখ টাকার দুধ বিক্রি হয়। যা প্রভাব ফেলেছে এলাকার অর্থনীতিতেও। এছাড়া ঘোষপাড়ার বাইরেও তালার বিভিন্ন এলাকার খামারিদের কাছ থেকে আরও ১০ হাজার লিটার দুধ উৎপাদন হয়। দুধ উৎপাদনই বদলে দিয়েছে অবহেলিত ঘোষপাড়াকে।

/ জহাসা

Total Page Visits: 381 - Today Page Visits: 1

তালা (সাতক্ষীরা) করেসপনডেন্ট

Jhour Hasan Sagor Mob: 01717-810659 Father: Jabbar Sardar Mother: Rashida Begum DOB: 7 Nov 1990 Blood Group: A+ NID: 19908719031000126 Vill: Hazarakati, PS: Tala, Dist: Satkhira HSC

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Shares