করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে বেনাপোল ইমিগ্রেশনে নতুন থার্মাল স্কানার: ভারতীয় ট্রাক চালকদের ঠিকমত স্বাস্থ্য পরীক্ষা হচ্ছে না

দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোষ্ট ইমিগ্রেশন কাস্টমসে দীর্ঘদিন থার্মাল স্ক্যানারের মনিটর নষ্ট থাকায় গত ১৭ জানুয়ারী থেকে হ্যান্ড থার্মাল দিয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছিলো। দীর্ঘ ৮ মাস নষ্ট থাকার পর করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে নতুন থার্মাল স্ক্যানার মেশিন স্থাপন করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

ভারত ভ্রমন শেষে বেনাপোল বন্দর দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশের সময় দেশি বিদেশী পাসপোর্টযাত্রীদের অতিদ্রæত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা যাবে। পাসপোর্টযাত্রীদের করোনা ভাইরাস ঠিকমত পরীক্ষা করা হলেও বেনাপোল বন্দরে ভারত থেকে আসা শত শত ট্রাক চালক ও হেলপারদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা ঠিকমত করা হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। ফলে বন্দর এলাকা চরম ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। ভারতের বিভিন্ন রাজ্য থেকে আসা ট্রাক চালকদের মাধ্যমে করোনা ভাইরাস ছড়ানোর আশংকা করছে স্থানীয় সচেতন মানুষ। জেলা ও উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের ঠিকমত তদারকির ব্যবস্থা না থাকায় এখানে দায়িত্বরত গাছাড়া ভাব নিয়ে কাজ করছে। বন্দরের কর্মকর্তারা ট্রাক চালকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা উদ্বোধন করেই তাদের দায়িত্ব শেষ করেছেন।

বিশ্ব জুড়ে যখন করোনা নিয়ে আতঙ্ক তখন বাংলাদেশের নেই কোন মাথা ব্যাথা এমনটি অভিযোগ করলেন বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোষ্টে কর্মরত বিভিন্ন শ্রেনীর পেশার মানুষ। প্রতিদিন বেনাপোল পেট্রাপোল সীমান্ত দিয়ে প্রায় ৭ থেকে ৮ হাজার দেশী বিদেশী মানুষ যাতায়াত করে শুধু পাসপোর্টযাত্রী হিসাবে। এছাড়া এ পথে ভারত এর বিভিন্ন প্রদেশ থেকে আসে প্রতিদিন সাড়ে ৩শ‘ থেকে ৪শ‘ পণ্যবাহি ট্রাকের সাথে ৮শ‘ চালক হেলপার। এছাড়াও আসে ভারত থেকে বন্ধন নামে একটি যাত্রীবাহী ট্রেন এবং পন্যবাহী ওয়াগন ট্রেন। কিন্তু এসব ট্রাক ড্রাইভারদের ও রেলের যাত্রীদের পরীক্ষা করার নির্দেশ থাকলেও স্বাস্থ্য কর্মীরা নানা অজুহাতে তাদের ঠিকমত পরীক্ষা করছে না।

প্রথম দিকে দুই একদিন লোক দেখানো একটি হাত স্ক্যানার নিয়ে পরীক্ষার কাজ চালালেও এখন চলছে ফাঁকিবাজি। অভিযোগ করলে জানানো হয় হয়ত খেতে বা প্রাকৃতিক কাজ সারতে বাইরে গেছে। বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে রাত ১২ টা পর্যন্ত আমদানি-রফতানি হলেও স্ট্যান্ডবাই স্বাস্থ্য কর্মী থাকার কথা বলা হলেও বিকেলের পর তাদের ঘটনাস্থলে পাওয়া যায় না। ফলে স্বাস্থ্য পরীক্ষা ছাড়াই নির্বিঘ্নে বেনাপোল বন্দর ও আশেপাশের এলাকায় চলে আসছে শত শত ভারতীয় ট্রাক চালক ও হেলপাররা।

বেনাপোল চেকপোষ্ট কার্গো শাখায় সকাল থেকে রাত অবধি কাজে নিয়োজিত থাকা মোশারাফ হোসেন বলেন, মাঝে মধ্যে একজন স্বাস্থ্য কর্মী এসে কয়েকজনের কপালে মেশিন ঠেকিয়ে অদৃশ্য হয়ে যায়। ঘন্টা খানেক পর আবার আসে। আবার চলে যায়। এ ভাবে স্বাস্থ্য পরীক্ষা দেশের জন্য ক্ষতিকর।

বুধবার দুপুর ১২ টার সময় চেকপোস্টে সরেজমিনে গিয়ে স্বাস্থ্য কর্মীর ব্যবহৃত খালি চেয়ারটি পড়ে থাকতে দেখা গেছে। পরে সাংবাদিকরা এসেছেন শুনে তিনি ঘটনাস্থলে আসেন। কোথায় ছিলেন প্রশ্ল করলে তিনি জানান বাথরুমে গিয়েছিলাম। অথচ তিনি ইমিগ্রেশনের মধ্যে থার্মাল স্ক্যানারের মনিটরের পাশে চেয়ারে বসে সহকর্মীর সাথে গল্প করছিলেন।

বেনাপোল রেলষ্টেশন এলাকার মিজানুর রহমান বলেন, ভারতীয় ট্রেনে যাত্রী এলে তেমন কোন পরীক্ষা করতে দেখা যায় না। মাঝে মধ্যে লোক দেখানো একজন স্বাস্থ্যকর্মী এখানে কিছু যাত্রীদের পরীক্ষা করলেও ভারত থেকে আগত সকল যাত্রীদের পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয় না।

বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোষ্টে আল আমিন নামে একজন ব্যবসায়ী বলেন, ভারতের বিভিন্ন প্রদেশ থেকে ট্রাক চালকরা এবং হেলপাররা আমদানি পণ্যবাহী ট্রাক নিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। আমদানি পন্যের জন্য ২৪ ঘন্টা সীমান্ত খোলা থাকলেও সেখানে ২৪ ঘন্টা স্বাস্থ্য পরীক্ষার কোন ব্যবস্থা নেই।

বেনাপোল বন্দরের ওপারে ভারতের পেট্রাপোল বন্দর ও চেকপোস্ট এলাকায় রেড এলার্ট জারি করেছে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। কোন যাত্রী ও বাংলাদেশী ট্রাক চালক হেলপারদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা ছাড়া প্রবেশ করতে দিচ্ছে না তারা। কিন্থু বেনাপোলে তার ব্যতিক্রম।
বেনাপোাল ইমিগ্রেশন মেডিকেল টিমের সদস্য ডা: হাসানুজ্জামান বলেন, থার্মাল স্ক্যানারটি অত্যান্ত আধুনিক। এটা বাইরে থেকে প্রতিটি যাত্রীর তাপমাত্রা অটোমেটিক নির্নয় করতে পারে। এছাড়া যার তাপমাত্রা যত বেশী সেখানে তার শরীরের উপর হাই লেখা দেখায় এই স্ক্যানারটি। বুধাবার সকাল ১০ টার সময় বেনাপোল ইমিগ্রেশন এর আগমনী শাখায় দেখা গেছে নতুন এই মেশিনটিতে সকল যাত্রীদের তাপমাত্রা অটোমেটিক নির্নয় করছে। তিনি আরো বলেন, যার তাপমাত্রা ১০০ ডিগ্রির উপর তাকে আমরা আমাদের মেডিকেল অফিসার ডাক্তার আজিম উদ্দিন এর নিকট নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি।

শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা: আজিম উদ্দিন বলেন, বেনাপোল ইমিগ্রেশন কাস্টমসের স্বাস্থ্য বিভাগের থার্মাল স্ক্যানারের মনিটর দীর্ঘদিন নষ্ট থাকায় হ্যান্ড থার্মাল স্ক্যানার দিয়েই স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো হচ্ছিল। মঙ্গলবার বিকালে একটি নতুন থার্মাল স্ক্যানার মেশিন স্থাপন করায় বুধবার সকাল থেকে নতুন স্ক্যানার দিয়ে পাসপোর্টযাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো হচ্ছে। এছাড়া আমদানি-রফতানি পণ্য বহণকারী ভারতীয় ট্রাকচালক, হেলপার ও রেলওয়ে ষ্টেশনে বন্ধন ট্রেনের পাসপোর্টযাত্রীদের হ্যান্ড থার্মাল দিয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হবে।

করোনাবাইরাসের ঝুঁকি এড়াতে সীমান্তবর্তী জেলা যশোরের শার্শা উপজেলায় ব্যাপক সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে। করোনা ভাইরাস সন্দেহে কোন রোগী আসলে তাকে আলাদা কেবিন বা বেডে না নিয়ে প্রথমে পরীক্ষা করা হবে। তারপর করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেলে তখনই করোনা ভাইরাস সেলে নিয়ে পর্যাপ্ত চিকিৎসা দেয়ার ব্যবস্থা করা হবে। জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগ আক্রান্তদের চিকিৎসাসেবায় শার্শা উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৬টি আইসোলেশন কেবিনে ১৮জন রোগী এবং পার্শ্ববর্তী মাদরাসায় আরো ৫০ জন রোগীর চিকিৎসার ব্যবস্থা করা যাবে বলে জানিয়েছেন যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন। যশোর সিভিল সার্জন অফিসের এক পরিসংখ্যান থেকে জানা গেছে, গত ১৭ জানুয়ারি হতে ৮ মার্চ পর্যন্ত ৪৮ দিনে বেনাপোল স্থলবন্দরে ভারত থেকে আসা ১ লাখ ৩৯ হাজার ১শ’ ৪৫ জন যাত্রীকে পরীক্ষা করা হয়েছে। পরীক্ষাকৃতদের দেহে এ পর্যন্ত কোন করোনাভাইরাসের আলামত পাওয়া যায়নি। এর মধ্যে ড্রাইভার, হেলপার, ট্রেনের স্টাফ ও দেশি বিদেশী পাসপোর্টযাত্রী রয়েছে।

এদিকে ‘সচেতন থাকবো-করোনার সাথে লড়বো’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে করোনা ভাইরাস সর্ম্পকে জনগনকে সচেতন করতে মঙ্গলবার বিকালে বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোস্টে পাসপোর্টযাত্রী, ইমিগ্রেশন পুলিশ, বিজিবি ও কাস্টম কর্মকর্তাদের মাঝে বিনামূল্যে মাস্ক, জীবানুমুক্ত করন হ্যান্ড ওয়াস ও টিস্যু বক্স সরবরাহ করেন কাস্টম কমিশনার মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন চৌধুরী।

বেনাপোল কাস্টম ক্লাবের সৌজন্যে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করতে এই প্রথম এধরনের উদ্যোগ গ্রহন করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, কাস্টমের অতিরিক্ত কমিশনার ড. মো: নেয়ামুল ইসলাম, বন্দরের পরিচালক মামুন তরফদার, ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহসান হাবিব, ওসি (তদন্ত) মহসিন হোসেন, চেকপোস্ট বিজিবির কোম্পানী কমান্ডার সুবেদার আব্দুল ওহাব, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক নাসির উদ্দিনসহ স্থানীয় সাংবাদিক ও সূধীবৃন্দরা।

/ মোজাহো

Total Page Visits: 288 - Today Page Visits: 1

বেনাপোল (যশোর) করেসপনডেন্ট

Md. Jamal Hossain Mobile: 01713-025356 Email: jamalbpl@gmail.com Blood Group: Alternative Mobile No: Benapole ETV Correspondent

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Shares