ওপার বাংলায় হোয়াটসঅ্যাপ এ হাজির পদ্মার ইলিশ!

ওপার বাংলায় হোয়াটসঅ্যাপ এ হাজির পদ্মার ইলিশ! হোয়াটসঅ্যাপ এ হাজির পদ্মার ইলিশ! ওপার বাংলার বাজারে ২৫০০ রুপিতে মিলছে বাংলাদেশের রুপালী ইলিশ।

খাতায় কলমে ২০১২ সাল থেকে ভারতে ইলিশ রপ্তানি নিষিদ্ধ করেছে বাংলাদেশ সরকার। তাই পদ্মার ইলিশ এখন ওপার বাংলায় ডুমুরের ফুল।

ভারতের মৎস্যজীবীদের অনেকেরই দাবি বছরের এই সময়টাতেই ইলিশ ধরার জন্য মুখিয়ে থাকেন তাঁরা।

কবে বাজারে একটু সস্তায় ইলিশ পাওয়া যাবে তা নিয়েও দিন গোনেন ভোজনরসিক পশ্চিম বাংলার বাঙালীরা। কিন্তু সেই আশা এবার হয়তো আর পূরণ হওয়ার নয়।

এবার ওপার বাংলার বাজারে এপার বাংলার ইলিশের আকালের জেরে পাচারকারীদের কাছে পাচারের অন্যতম উপাদান হয়ে উঠেছে পদ্মার ইলিশ।

ভারতীয় পত্র পত্রিকার খবর, পেট্রাপোল সীমান্ত লাগোয়া তেরঘরিয়া, পীরোজপুর, গাইঘাটার সুটিয়া এলাকা দিয়ে বাংলাদেশ থেকে

পাচার হয়ে পদ্মার ইলিশ ঢুকছে বনগাঁ বাজারে। হাত বদলে সেই ইলিশের দাম দাঁড়াচ্ছে ১৮০০-২৫০০ রুপিতে।

তবে চোরাপথে আসা ইলিশ খোলাবাজারে সাধারণত বিক্রি করার ঝুঁকি নিতে চান না ব্যবসায়ীরা।

সুনামগঞ্জ সীমান্তে বিজিবির অভিযান বিভিন্ন পণ্য আটক

মূলত পাচারকারীদের সঙ্গে বিশেষভাবে যোগাযোগের মাধ্যমে এই বাংলাদেশের ইলিশ মিলছে। এমনটাই দাবি ভারত সীমান্ত বাসিন্দাদের একাংশের।

বাংলাদেশ থেকে চোরাপথে যাওয়া ইলিশ গোপনে মজুত করে দালালরা। এরপর মোবাইলে হোয়াটসঅ্যাপ এর মাধ্যমে ইলিশের ছবি দেখিয়ে ওজন ও

দাম মনোনিত করে যোগাযোগ করা হলে সেই ইলিশ হাতবদল হয়।

এমনকী বেশি টাকার বিনিময়ে এই ইলিশের হোম ডেলিভারিও হচ্ছে বনগাঁ সীমান্ত শহর এলাকায়। তবে সবটাই হয় গোপন পথে। কাকপক্ষীও টের পায়না।

সূত্রের খবর, মূলত কাঁটাতারবিহীন এলাকা দিয়েই প্যাকেটভর্তি ইলিশ যায় বাংলাদেশ থেকে। সেই ইলিশই মজুত করে দালালরা।

এক দেড় কেজি ইলিশের দাম পড়ে প্রায় ১৮০০ রুপি থেকে ২৫০০ রুপি। তবে পাচার রুখতে যথেষ্ট তৎপর সীমান্তরক্ষী বাহিনী।

যশোরের শার্শা উপজেলার প্রতিবন্ধী হুসাইন পেলো হুইল চেয়ার

তবুও চোরাপথে, ঘুরপথে চলে যায় বাংলাদেশের ইলিশ। অভিযোগ এমনটাই।

বনগাঁর এক পুলিশ কর্তার কথায় এই সব মাছের গায়েতো লেখা থাকেনা পদ্মার ইলিশ বা কোন স্ট্যাম্প দেওয়াও থাকে না এক মাত্র খেয়ে দেখলেই

বোঝা যায় কোনটা পদ্মার আর কোনটা দীঘার ইলিশ। তবে এটা ঠিক স্বাদে গন্ধে অপূর্ব বাংলাদেশের পদ্মার ইলিশ।

এই বর্ষার মৌসুমে পেট্রাপোল সীমান্তে কাঁটাতারের পাশে দাঁড়িয়ে থাকলে এপার বাংলার পদ্মার ইলিশের গন্ধ ভেসে যায় ওপার বাংলায়,

তাই বেশি দাম দিতে হলেও শুধু হোয়াটসঅ্যাপ কেন যে কোন অ্যাপের মাধ্যমে ভোজন রসিক বাঙালী পদ্মার ইলিশ কিনবে

চড়া দামে এক গাল হেসে জানান, বেনাপোলের বিপরীতে পেট্রাপোল সিএন্ডএফ এজেন্ট ওয়েলফেযার এ্যাসোসিয়শনের সম্পাদক কার্তিক চক্রবর্তী।

ওপার বাংলায় হোয়াটসঅ্যাপ ভারত সীমান্তে বাণিজ্যের সঙ্গে যুক্ত ব্যাবসায়ী প্রদীপ দে বলেন,

বাংলাদেশের প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা এবছর হাড়িভাঙা আম পাঠালেন এ দেশের প্রধান মন্ত্রী, মুখ্যমন্ত্রীর জন্য।

আমরা আশা রাখছি এবার সাধারণ মানুষের জন্যও পদ্মার ইলিশ পাঠাবেন।

ভরতের বনগাঁ শহরের এক হোটেল ব্যাবসায়ী বলেন, কাস্টমারদের অনুরোধ আসে পদ্মার ইলিশ এর জন্য।

তখনই দালালদের হোয়াটসঅ্যাপ এর দ্বারস্থ হতে হচ্ছে ওপার বাংলার ইলিশের জন্য।

/ মোঃ জামাল হোসেন

http://shopno-tv.com, http://thebanglawall.com
প্রতিনিধির তালিকা দেখতে ভিজিট করুন shopnotelevision.wix.com/reporters সাইটে।
দ্যা বাংলা ওয়াল, The Bangla Wall, www.thebanglawall.com
দ্যা বাংলা ওয়াল, The Bangla Wall, www.thebanglawall.com
Total Page Visits: 98 - Today Page Visits: 2

বেনাপোল (যশোর) করেসপনডেন্ট

Md. Jamal Hossain Mobile: 01713-025356 Email: jamalbpl@gmail.com Blood Group: Alternative Mobile No: Benapole ETV Correspondent

৩ thoughts on “ওপার বাংলায় হোয়াটসঅ্যাপ এ হাজির পদ্মার ইলিশ!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares