কৃষি কাজে ব‍্যবহৃত বেদা বা হাতছেন্নি আজ বিলুপ্তির পথে

কৃষি কাজে বহুল ব‍্যবহৃত বেদা বা হাতছেন্নি নামে পরিচিত যন্তটি আজ বিলুপ্তির পথে।

প্রাচীনকাল থেকেই কৃষি বাঙালির জীবিকার উৎস। কৃষি কাজে বহুল ব‍্যবহৃত কৃষি যন্ত্রপাতির মধ্যে বেদা অন‍্যতম।

গ্রামগঞ্জে ইহা সবার কাছে বেদা বা হাতছেন্নি নামে সুপরিচিত । যেটি বড় সেটি বেদা আর যেটি ছোট সেটি হাতছেন্নি।

এটি সাধারণত সরল যন্ত্র। আজ থেকে প্রায় ১৫ বছর আগে এই যন্ত্রটির ব‍্যাপক ব‍্যবহার ছিল। কিন্তু এখন বিলুপ্তির পথে।

উপকরণ একটি কাঠের দন্ডে ১টি ঈশ, ১টি পোকা/মুটিয়া ও ১১/৯/১৪টি দ্বার বিশিষ্ট এই যন্ত্রটি র্নিমিত ।

যশোরে সোনার বারসহ আটক ব্যক্তির ১৪ বছর দন্ড

শাহবাজার উচ্চ বিদ‍্যালয়ের কৃষি শিক্ষক খোরশেদ আলম বলেন, একটি বাঁশের দন্ড দিয়ে এই যন্ত্রটি দ্বারা কাজ করা হয়।

যন্ত্রটি অতিরিক্ত অবাঞ্চিত গাছ ও আগাছা নিধন করে। হস্ত অথবা গরু/মহিষ দিয়ে এ যন্ত্রটি চালানো হয়।

বেদা দিয়ে নিড়ানির কাজ হয়। চারা পাতলা করন ও জমি চাষ হয়।

এহসান গ্রুপে ৪০ লাখ টাকা রেখেছেন সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা

কুড়িগ্রাম সদরের (সারডোব হোলোখানা) কৃষক মনির উদ্দিন মিয়া বলেন আগে বিতরি ধান, সরিষা, ডাল, কাউন ও

পাঠ ক্ষেতে শ্রমিক সাশ্রয়ের জন‍্য বেদা দেওয়া হতো।

এখন তেমনটা বেদার প্রচলন নেই বললেই চলে। কিন্তু এখনো চরঞ্চলে কাউন চাষ করলে বেদা ব‍্যবহার করা হয়।

/ হেলাল উদ্দিন

http://shopno-tv.com, http://thebanglawall.com
প্রতিনিধির তালিকা দেখতে ভিজিট করুন shopnotelevision.wix.com/reporters সাইটে।
দ্যা বাংলা ওয়াল, The Bangla Wall, www.thebanglawall.com
দ্যা বাংলা ওয়াল, The Bangla Wall, www.thebanglawall.com
Total Page Visits: 77 - Today Page Visits: 2

ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) করেসপনডেন্ট

# ৫০ নাম: মো: হেলাল উদ্দিন। helalfulkuri@gmail.com পিতার নাম: মো: আবুল কাশেম। মাতার নাম: মোছা: দুলালী বেগম। বর্তমান ঠিকানা: গ্রাম: চন্দ্রখানা , ডাকঘর : ফুলবাড়ী, উপজেলা: ফুলবাড়ী, জেলা: কুড়িগ্রাম। স্থায়ী ঠিকানা: গ্রাম: চন্দ্রখানা , ডাকঘর : ফুলবাড়ী, উপজেলা: ফুলবাড়ী, জেলা: কুড়িগ্রাম। জন্ন তারিখ: ২০/১০/১৯৯২ ইং আইডি নম্বর: ১৯৯২৪৯১১৮৪০০০০২৮৩ রক্তের গ্রুপ: A+ মোবাইল নম্বর: ০১৭৫০৯৫৬৩০৮। বিএ পাশ করোনা কালিন সময়ের জন্য এখনো সাটির্ফেকেট হাতে পাই নাই। বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকায় ৩ বৎসর যাবদ সংবাদ প্রদান কাজে নিয়োজিত আছি।

২ thoughts on “কৃষি কাজে ব‍্যবহৃত বেদা বা হাতছেন্নি আজ বিলুপ্তির পথে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares