বেনাপোল ১৩ দিনে মাত্র ৬০ মেট্রিক টন আমদানি ভারত থেকে

বেনাপোল দিয়ে তেমন আমদানি নেই পেঁয়াজের : ১৩ দিনে মাত্র ৬০ মেট্রিক টন আমদানি ভারত থেকে।

দেশের বিভিন্ন স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি কমে যাওয়ায় দেশের বাজারে পেঁয়াজের মূল্য হঠাৎ করে বেড়ে গেছে।

প্রতি কেজিতে ১৫ থেকে ২০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে দেশি পেঁয়াজ প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬৫ টাকা ও ভারতীয় পেঁয়াজ ৫৫ টাকা দরে।

পেঁয়াজ রফতানিতে ভারতের কোন নিষেধাজ্ঞা না থাকা ও ভারতীয় কৃষিপণ্য মূল্য নির্ধারণকারী সংস্থা ‘ন্যাপেড’ পেঁয়াজ রফতানিতে

বেনাপোল ১৩ দিনে মাত্র

কোন মূল্যও না বাড়ালেও পেঁয়াজ আমদানিতে কোন উৎসাহ নেই আমদানিকারকদের।

তবে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে আকস্মিক বন্যা দেখা দেওয়ায় ফসলের মাঠ তলিয়ে গেছে। সে কারণে পেঁয়াজ সংকট দেখা দিয়েছে ভারতে।

ভারতের স্থানীয় বাজারে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। ভারতীয় পেঁয়াজ পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ২২ থেকে ২৩ রুপির মধ্যে।

আর খুচরা বাজারে ২৪ থেকে ২৬ রুপিতে বিক্রি হচ্ছে। আগে ছিল ১৬ থেকে ১৮ রুপি কেজি।

গত ২২ সেপ্টেম্বর থেকে ৪ অক্টোবর পর্যন্ত (১৩ দিনে) দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোল দিয়ে মাত্র ৬০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে।

এর মধ্যে ২২ সেপ্টেম্বর ৩০ টন ও ৩০ সেপ্টেম্বর ৩০ টন আমদানি হয় এ পথে। ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বেশি না হওয়ায় দেশী বাজারে এর প্রভাব পড়েছে।

গত সপ্তাহে ৪০ থেকে ৪৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হলেও এ সপ্তাহে তা বেড়ে ৬৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বাজার মনিটরিং থাকলে দাম কিছুটা কম হতে পারে বলে ক্রেতারা বলেছেন।

শ্রীপুরে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে সাংবাদিকের উপর হামলা

বেনাপোল বন্দরের পাইকারী পেঁয়াজ বিক্রেতা শুকুর আলী জানান, ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি কম।

আর যা আসছে তা অর্ধেক বস্তায় পচা পাওয়া যাচ্ছে। এতে বাজারে দাম কমছে না।

বাইরে থেকে আমদানি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত একরম বাজার অস্থিতিশীল থাকবে মনে হচ্ছে।

বাংলাদেশে এর চাহিদার বেশিরভাগ পূরণ হয় ভারত থেকে আমদানি করা পেঁয়াজে।

পেঁয়াজ আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান বিশ^াস ট্রেডার্স এর সত্বাধিকারী নূরুল আমিন বিশ^াস জানান,

আমি গত দুই চালানে মাত্র ৬০ টন পেঁয়াজ আমদানি করেছি। প্রতি মেট্রিক টন ২৬০ মার্কিন ডলারে এলসি করেছি।

যা বাংলাদেশি টাকায় প্রতিটন ২২ হাজার ৮৭ টাকা। ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে বন্যা দেখা দেওয়ায় বাজারে পেঁয়াজ তেমন পাওয়া যাচ্ছে না।

ভারতের স্থানীয় মার্কেটে দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। ওই পেঁয়াজ এনে খরচ বাদ দিয়ে কোন লাভ নেই। অনেক পেঁয়াজ নস্ট হয়ে যায়।

নাভারন ইউনিয়ন নির্বাচনে অধ্যাপক রফিকুল চেয়ারম্যান প্রার্থী

সে কারণে পেঁয়াজ আমদানিতে অন্যরা উৎসাহ দেখাচ্ছে না। বাজারের ক্রেতারা দেশি পেঁয়াজ একটু বেশি দামে কিনলেও

ভারতীয় পেঁয়াজ নিম্ন ও মধ্যবিত্ত পরিবারের লোক কিনে থাকে।

বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজ তেমন আমদানি না থাকায় দেশি পেঁয়াজের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় দামও বাড়িয়ে দিয়েছে ব্যবসায়ীরা।

বেনাপোলের বিপরীতে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরের রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান মা স্বরশতি এজেন্সির স্বত্বাধিকারী বাপ্পা মজুমদার জানান,

বন্যার কারণে পেঁয়াজের দাম ভারতের স্থানীয় বাজারে বৃদ্ধি পেয়েছে। পেঁয়াজ রপ্তানিতে ভারত সরকারের কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই।

ভারত সরকারের কৃষিপণ্য মূল্য নির্ধারণকারী সংস্থা ‘ন্যাপেড’ পেঁয়াজ রপ্তানিতে কোন মূল্য নির্ধারন করেনি।

বেনাপোল ১৩ দিনে মাত্র কি কারণে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজের এলসি করছে না সেটা আমি জানি না।

বেনাপোল কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন জানান, সর্বশেষ গত মাসের ২২ ও ৩০ তারিখে ভারত থেকে

দুই চালানে ৬০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে। বেনাপোল কাস্টমস হাউজ থেকে ভারতীয় পেঁয়াজ প্রতি মেট্রিক টন ৩১০ মার্কিন ডলারে

এ্যাসেসমেন্ট (শুল্কায়ন) হচ্ছে। যা বাংলাদেশি টাকায় ২৬ হাজার ৩৪৫ টাকা।

পণ্য ছাড় করাতে ব্যবসায়ীদের শুল্কায়ন মূল্যের ওপর শতকরা ৫ ভাগ হারে শুল্ক ও ৫ ভাগ এআইটি পরিশোধ করতে হচ্ছে।

/ মোঃ জামাল হোসেন

http://shopno-tv.com, http://thebanglawall.com
প্রতিনিধির তালিকা দেখতে ভিজিট করুন shopnotelevision.wix.com/reporters সাইটে।
www.thebanglawall.com
দ্যা বাংলা ওয়াল, The Bangla Wall, www.thebanglawall.com
দ্যা বাংলা ওয়াল, The Bangla Wall, www.thebanglawall.com
www.thebanglawall.com
www.thebanglawall.com
Total Page Visits: 60 - Today Page Visits: 1

বেনাপোল (যশোর) করেসপনডেন্ট

Md. Jamal Hossain Mobile: 01713-025356 Email: jamalbpl@gmail.com Blood Group: Alternative Mobile No: Benapole ETV Correspondent

২ thoughts on “বেনাপোল ১৩ দিনে মাত্র ৬০ মেট্রিক টন আমদানি ভারত থেকে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares